আগামী বছর থেকে আর বাংলা ছবি নির্মাণ করবে না জাজ

ডিজিটাল চলচ্চিত্র দিয়ে ঢাকাই ছবির জগতে যাত্রা নির্মাণ সংস্থা জাজ মাল্টিমিডিয়ার। বর্তমানে কলকাতায়ও প্রভাব তৈরি করেছে এই প্রতিষ্ঠান। যৌথ প্রযোজনা দিয়ে সারা বছর আলোচনায় থাকা এই প্রতিষ্ঠানটি সম্প্রতি নির্মাণ করেছে ‘ডুব’ নামের একটি চলচ্চিত্র, যেটি আপাতত সরকারের নির্দেশে আটকে গেছে। প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার এমন পরিস্থিতির সাপেক্ষে জানিয়েছেন, আগামী বছর থেকে জাজ আর বাংলা ছবি নির্মাণ করতে চাচ্ছে না।

সম্প্রতি জাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার আবদুল আজিজ এফডিসিতে ‘দুলাভাই জিন্দাবাদ’ ছবির মহরতে বলেন, “বাংলাদেশে এখন ছবি বানানো কষ্টকর হয়ে গেছে। প্রেমের ছবি ছাড়া অন্য কোনো ছবি বানানো যায় না। আমি ‘দেশা দ্য লিডার’সহ যতগুলো গল্পনির্ভর ছবি বানিয়েছি, তার প্রত্যেকটা নিয়ে সেন্সর বোর্ড আপত্তি করেছে। এমনকি ‘নবাব’ ছবিটিকেও বার বার প্রশ্নবিদ্ধ করছে। অথচ প্রেম ভালোবাসার ছবি হলে কোনো কথা ছাড়াই ছবি ছেড়ে দিচ্ছে। শুধু প্রেমের ছবি দিয়ে তো আর ব্যবসা হবে না।”

গত ১০ শুক্রবার মুক্তিপ্রাপ্ত ‘প্রেমী ও প্রেমী’ ছবি নিয়ে তিনি বলেন, ‘এই ছবিটি অনেক ভালো একটি প্রেমের ছবি হয়েছে। কিন্তু ব্যবসায়িকভাবে আমরা লাভবান নই। সিনেমা হল থেকে যে টাকা পাই, তা দিয়ে পুঁজি ফেরত আসে না। আমাদের ডিজিটাল কনটেন্টে ভালো একটা টাকা আসে, যে কারণে আমরা হয়তো ছবির মূলধন ফেরত পাব।’

সিনেমা হলগুলোকে দায়ী করে আবদুল আজিজ বলেন, ‘আমাদের দেশের সিনেমা হলগুলোতে ছবি দেখার কোনো পরিবেশ নেই। অথচ সিনেমা হলের মালিক ঠিকই ব্যবসা করছেন, কিন্তু হলের পরিবেশ ঠিক করছেন না। একটা ছবির বিক্রি যদি এক কোটি টাকা হয়, সেখান থেকে ছবির প্রযোজক পান ২৭ লাখ টাকার মতো। ছবির সিংহভাগ টাকা নিয়ে যাচ্ছে সিনেমা হলে। এমনকি ছবির জন্য যে ট্যাক্স দিতে হয়, তাও প্রযোজকের টাকা থেকে কেটে রাখা হয়। এমন অবস্থায় শুধু হলের পরিবেশ ঠিক করলেই হবে না, সঙ্গে সিনেমাও বানাতে হবে হল মালিকদের।’

ছবি নির্মাণের প্রসঙ্গে আবদুল আজিজ বলেন, ‘আমি চলচ্চিত্রে ব্যবসা করতে এসেছি। কিন্তু এখানে সেন্সরবোর্ড ও সিনেমা হলের পরিবেশের কারণে ভালো ছবিগুলোও ব্যবসাসফল হচ্ছে না। যদি আগামী বছর থেকে সিনেমা হলে পরিবেশ ঠিক না হয়, তা হলে বাংলা চলচ্চিত্র নিয়ে আর কাজ করব না। সরাসরি মুম্বাইয়ে ছবি বানাব।’

Comments

comments

Scroll To Top