‘ইনফার্নো’ নিয়ে বাংলাদেশে আসছেন টম হ্যাঙ্কস ও ইরফান

collage_650_021815021934

অবশেষে রূপালি পর্দা আলো করতে যাচ্ছে ড্যান ব্রাউনের জনপ্রিয় উপন্যাস ‘ইনফার্নো’। শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বব্যাপী মুক্তি পেতে যাচ্ছে উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত কাঙ্খিত চলচ্চিত্রটি। একই দিনে বাংলাদেশের স্টার সিনেপ্লেক্সে মুক্তি পাবে এ ছবি।

আগের দুই ছবির মতোই এ ছবির প্রধান চরিত্র প্রফেসর রবার্ট ল্যাংডনের ভূমিকায় দেখা যাবে হলিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা টম হ্যাঙ্কসকে। এতে আরো অভিনয় করেছেন ফেলিসিটি  জোনস, ওমর সাই, বেন ফস্টার এবং বলিউড অভিনেতা ইরফান খান।

আগের ছবিগুলোর ধারাবাহিকতায় এ ছবিটিও পরিচালনা করেছেন অস্কারজয়ী রন হাওয়ার্ড। ২০০৬ সালে মুক্তি পায় ‘দ্য দা ভিঞ্চি কোড’। এরপর এই সিরিজের দ্বিতীয় ছবি ‘অ্যাঞ্জেল অ্যান্ড ডেমন্স’ মুক্তি পায় ২০০৯ সালে। প্রায় সাত বছর পর এবার মুক্তি পেতে চলেছে এই ফ্র্যাঞ্চাইজির তৃতীয় ছবি ‘ইনফার্নো’।

এবারের গল্পটা আগেরগুলোর থেকে একটু আলাদা। এ গল্পে সাময়িক স্মৃতিভ্রমের শিকার হন প্রফেসর রবার্ট ল্যাংডন। এরপর সুস্থ হয়ে উঠে তিনি জানতে পারেন, পৃথিবীতে এক নতুন মরণ রোগের উদ্ভব হয়েছে। যে রোগে এক ধাক্কায় পৃথিবীর জনসংখ্যা অর্ধেক হয়ে যেতে পারে! প্রফেসর জানতে পারেন, একমাত্র তিনিই এই বিপদ থেকে পৃথিবীকে বাঁচাতে পারেন। কিন্তু কিভাবে? সে প্রশ্নের উত্তর জানা যাবে শুক্রবার থেকে স্টার সিনেপ্লেক্সের পর্দায়।

উল্লেখ্য, ‘ইনফার্নো’ উপন্যাসটি প্রকাশের প্রথম সপ্তাহেই বিক্রি হয়ে যায় এর আড়াই লাখেরও বেশি কপি। এর আগে ড্যান ব্রাউনের উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত দুটি সিনেমাই বেশ ভালো ব্যবসা করেছিল, যা থেকে ভালোই লাভবান হয়েছিল সিনেমার স্বত্বধারী ‘সনি’। ২০০৬ সালে মুক্তি পাওয়া ‘দ্য দা ভিঞ্চি কোড’ আয় করেছিল প্রায় ৫০  কোটি মার্কিন ডলার। আর ২০০৯ সালে মুক্তি পাওয়া ‘অ্যাঞ্জেলস অ্যান্ড ডেমন্স’ তুলে এনেছিল ৩০ কোটি মার্কিন ডলারেরও বেশি।

Comments

comments

Leave a Reply

Scroll To Top