নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে সোচ্চার অ্যাম্বার হার্ড

amber-heard

নিজের কাছের মানুষের কাছ থেকে শারীরিক নির‌্যাতনের কষ্টটা কতখানি পোড়ায়, তা বোধহয় মার্কিন অভিনেত্রী অ্যাম্বার হার্ড-এর চেয়ে বেশি জানা নেই কারও। সাবেক স্বামী জনি ডেপ-এর সঙ্গে চলতি বছরে বিয়েবিচ্ছেদ তিনি ঘটান এ কারণেই। এবার তিনি সরাসরি মাঠে নামলেন নারীদের উপর নির্যাতনকে রুখে দাঁড়াতে। গৃহ নির‌্যাতনের প্রতিবাদ করে তৈরি একটি ভিডিওতে অংশ নিলেন ‘দ্য রাম ডায়েরি’ খ্যাত এই অভিনেত্রী।

পিপল ম্যাগাজিন বলছে, নারী আলোকচিত্রীদের নিয়ে গঠিত একটি আন্তর্জাতিক বহুমাধ্যম প্রজেক্ট গার্লগেইজ-এর একটি নারী নির্যাতন বিরোধী সচেতনতামূলক ভিডিওতে অংশ নিয়েছেন অ্যাম্বার। এতে নির‌্যাতনের শিকার হওয়ার সময়গুলো এবং পরবর্তীতে গণমাধ্যমের সামনে বিচ্ছেদের ঘটনাটি সামাল দেওয়া নিয়ে নিজের অভিজ্ঞতা খোলাখুলিভাবে তুলে ধরেছেন তিনি।

তিনি বলেন, “আমার মনে হয়, ‘নির‌্যাতনের শিকার’- এই তকমাটা একবার লেগে যাওয়ার ব্যাপারটি ছিল খুব লজ্জার। আপনারা জানেন, এটা এতো বেশি নারীর সঙ্গে ঘটে; কিন্তু যখন এটা আপনারই নিজের ঘরের বন্ধ দরজার পেছনে আপনি যাকে ভালবাসেন- এমন কারও সঙ্গে ঘটে- তখন সেটা আর এতো সরল থাকে না।”

অ্যাম্বার আরও জানান, কঠিন সেই পরিস্থিতি মোকাবেলায় তাকে সাহায্য করেছে তারই কাছের কয়েকজন নারী। তিনি বলেন, “ওই সময়টাতে যদি আমার আশপাশে এমন কিছু বন্ধু না থাকতো, যাদেরকে আমি সত্যিই বিশ্বাস করি; এমন কয়েকজন নারী যদি না থাকতেন, যারা আমার পক্ষে ছিলেন, তবে কী কঠিনই না হতো ওই সময়টাকে পার করা!”

সবশেষে নারীদের জন্য অ্যাম্বার শোনান অভয়বাণী। তিনি বলেন,  “শুধুমাত্র একজন নারী হওয়ার কারণে এবং গোটা বিষয়টি জনসমক্ষে গড়ানোর কারণে, আমার একটি অনন্য সুযোগ হয়েছে অন্য নারীদের এটা মনে করিয়ে দেওয়া, এই লড়াইয়ে তারা একা নয়। আমরা চাইলেই এটা বদলাতে পারি।”

বিচ্ছেদের পর জনি ডেপ-এর কাছ থেকে ক্ষতিপূরণ হিসেবে যে অর্থ পেয়েছিলেন সেটা নির্যাতিত নারীদের সাহায্যে খরচ করার ঘোষণা দিয়েছিলেন অ্যাম্বার। যদিও নির্যাতনের মামলা থেকে ডেপকে খালাস দেয় আদালত।

Comments

comments

Leave a Reply

Scroll To Top