লন্ডনের মঞ্চে হ্যারি পটার

Harry-Potter-696x522

বইয়ের পাতা আর সিনেমার পর্দা থেকে বেরিয়ে এসে জনপ্রিয় চরিত্র হ্যারি পটার এবার দাঁড়াচ্ছে মঞ্চে। মঙ্গলবার লন্ডনের প্যালেস থিয়েটারে হ্যারি পটারের অভিষেক ঘটবে।

নাটকের নাম রাখা হয়েছে ‘হ্যারি পটার অ্যান্ড দ্য কার্সড চাইল্ড’। ভক্তদের মতো হ্যারি পটারেরও বয়স বেড়েছে। স্ত্রী জিনি উইসলি আর তিন সন্তানকে নিয়ে তার সংসার। চাকরি করছে মিনিস্ট্রি অব ম্যাজিকে।

মঞ্চে হ্যারি পটারের ভূমিকায়  অভিনয় করবেন জিমি পার্কার। তিনি বলছেন, ‘কিছু কিছু গল্প আছে যেগুলো মানুষ তাদের সারা জীবন ধরে বয়ে বেড়াচ্ছে। এগুলো নিয়েই তাড়া বড় হচ্ছে। এখন এসে তারা গল্পগুলো আবার সেখান থেকে বলবে, যেখানে শেষ হয়েছিলো। আমি ওইসব মানুষদের একজন।’

ধারণা করা হচ্ছে, নাটকটি খুব সাড়া জাগাবে। কারণ প্রদর্শনীর টিকিট ছাড়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে এক লাখ পঁচাত্তর হাজার টিকিট বিক্রি হয়ে গেছে। আর এই চিত্রনাট্যটি প্রকাশিত হওয়ার পর থেকে এরই মধ্যে বেস্টসেলারের তালিকায়। জেকে রাউলিং ও জন টিফনির মূল গল্প অবলম্বনে এই মঞ্চনাটকটি লিখেছেন জ্যাক থ্রুন।

প্রদর্শনীটি নিয়ে আলোচনা ছড়িয়েছে খুব। তবে হ্যারি পটারকে মঞ্চে আনার সিদ্ধান্তটা বেশ কঠিনই ছিলো। বিশেষ করে এই নাটকে হ্যারির বয়স যখন আরও বিশ বছর বেশি, দর্শক এটিকে ভালোভাবে নেয় কিনা তখন তো এ আশংকা থেকেই যায়।

তবে দর্শকদের আগ্রহে সে আশংকা পানি হয়ে গেছে।

এ গল্পে হ্যারি পটার ম্যাজিক মিনিস্ট্রিতে কাজ করছে। কিন্তু সে তার অতীত থেকে বেরিয়ে আসতে পারছে না। পারছে না তার সন্তানদেরকে ছেড়ে যেতেও। ‘তবে মাঝে মধ্যে অন্ধকার কিছু অপ্রত্যাশিত জায়গা থেকেই বেরিয়ে আসে’- এটাই নাটকের মূল বক্তব্য।

Comments

comments

Leave a Reply

Scroll To Top